- নারী নির্যাতন

নারায়ণগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা

ডেস্ক নিউজ :: নারায়ণগঞ্জের বন্দরে যৌতুকের দাবিতে সুমাইয়া আক্তার বর্ষা (২১) নামে এক গৃহবধূকে শারীরিক নির্যাতনের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ ওঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে।

সোমবার রাতে বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের আলী সাহারদী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ স্বামী মোস্তাফিজুর রহমান নয়নকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বর্ষার স্বজনরা জানান, ২০১৩ সালে আলী সাহারদী এলাকার শহীদুল্লাহর ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান নয়নের সঙ্গে রাজধানীর কদমতলী থানার দনিয়া সরাইল এলাকার বাসিন্দা মনজুর ভূঁইয়ার বড় মেয়ে সুমাইয়া আক্তার বর্ষার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়।

বিয়ের সময় নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও আসবাবপত্র বাবদ দশ লাখ টাকা খরচ করেন বর্ষার পরিবার। বর্ষার সংসারে সাড়ে চার বছরের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে।

বর্ষার বাবা মনজুর ভূঁইয়া জানান, প্রায় এক বছর আগে নিজের জমি বিক্রি করে বেশকিছু টাকা হাতে পান তিনি। সেই টাকা নিজের ব্যবসায় বিনিয়োগ করে ফেলেন। জমি বিক্রি করে তিনি টাকা পেয়েছেন এ খবর জানতে পেরে জামাতা নয়ন ব্যবসা করার অজুহাতে বর্ষার মাধ্যমে তার কাছে পাঁচ লাখ টাকা চায়।

এ নিয়ে নয়ন ও বর্ষার মধ্যে কলহ দেখা দেয়। দাবিকৃত টাকা না দেয়ায় নয়ন বর্ষার ওপর বেশ কিছুদিন যাবৎ মারধরসহ নানা শারীরিক নির্যাতন করে আসছে। ঈদের কয়েকদিন আগে থেকে এ পর্যন্ত প্রতিদিনই বর্ষাকে মারধর করত নয়ন।

তিনি বলেন, সোমবার রাতে বর্ষার শ্বশুর মোবাইল ফোনে জানায় বর্ষা খুব অসুস্থ। আমাদের তিনি তাড়াতাড়ি যেতে বলেন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে বর্ষায় শ্বশুরবাড়ি যাই। এ সময় বর্ষার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা জানায় বর্ষা শ্বাসকষ্টে মারা গেছে।

তিনি বলেন, দাবিকৃত টাকার অজুহাতে সোমবার রাতে নয়ন বর্ষাকে মারধর করে এবং শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে।

বর্ষার ছোট বোন মীম জানায়, সোমবার বিকাল পৌনে পাঁচটার দিকে বর্ষা তাকে ইমুতে ফোন করে খুব কান্নাকাটি করে। নয়ন প্রতিদিন তাকে মারধর করে বলে জানায়। মারধরের কারণে শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়েছে বলেও জানায়।

এই বাড়িতে থাকলে নয়ন মারধর করে মেরে ফেলবে এই ভয়ে তাকে (বাবার) বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার জন্য বোনকে অনুরোধ করে। প্রায় এক ঘণ্টা দু’বোনের মধ্যে মোবাইল ফোনের ইমুতে কথা হয়।

বর্ষার স্বামী নয়ন পুলিশকে জানায়, ঘরে গিয়ে দেখি বর্ষা ঘরের আঁড়ার সঙ্গে ঝুলছে। তাকে নামিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাই। কর্তব্যরত চিকিৎসক বর্ষাকে মৃত ঘোষণা করেন। বন্দর থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম জানান, বর্ষার লাশের সুরতহাল পর্যবেক্ষণে গলা ও ডানহাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে বর্ষার বাবা মনজুর ভূঁইয়া বাদী হয়ে বর্ষার স্বামী নয়নকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। নয়নকে গ্রেফতার করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন জানিয়ে মঙ্গলবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

TG Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *