- Awareness

বড়লেখায় সাপের কামড়ে কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু, সুস্থ করার নামে চলছে ওঝাদের ঝাড়ফুঁক

লিটন শরীফ, বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় সাপের কামড়ে শিবানী রানী দাস (২৫) নামের এক কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। গত রবিবার (০৫ আগস্ট) দিবাগত রাত আনুমানিক ১১টার দিকে নিজ বাড়িতে সাপের কামড়ে আহত হন শিবানী দাস। ওই রাতেই আহত অবস্থায় শিবানীকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন সোমবার (০৬ আগস্ট) সকাল ৮টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। শিবানী উপজেলার ২ নম্বর দাসের বাজার ইউনিয়নের সুনাম-পুর গ্রামের মনোরঞ্জন দাসের মেয়ে। তিনি স্থানীয় একটি বেসরকারি স্কুলে শিক্ষকতাও করতেন।

এদিকে সোমবার (০৬ আগস্ট) বিকেলের দিকে শিবানীর লাশ বাড়িতে নেওয়া হয়। সাপের কামড়ে কলেজ ছাত্রীর মৃত্যুর খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে সব জায়গায়। খবর পেয়ে বিভিন্ন জায়গা থেকে ওঝারা এসে জড়ো হন ওই বাড়িতে। রাতেই ওঝারা শুরু করে ঝাড়ফুঁক। এ খবর পেয়ে লোকজন ভিড় করেন ওই বাড়িতে। ভিড় সামলাতে শেষ পর্যন্ত পুলিশে খবর দেওয়া হয়। বিশৃঙ্খলা এড়াতে রাতে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লোকজনের ভিড় সামাল দেন।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত রবিবার (০৫ আগস্ট) দিবাগত রাত আনুমানিক ১১টার দিকে ঘরের বাইরে বের হন শিবানী দাস ও তাঁর ছোট বোন। অন্ধকারে মাঝে হঠাৎ কিছু একটা শিবানীর পায়ে কামড় দেয়। এরপর তাঁর ছোট বোন ঘরে গিয়ে লাইট জ্বালায়। তখন একটি সাপ তাদের ঘরে প্রবেশ করতে দেখেন। তাৎক্ষণিক সাপে কামড় দিয়েছে বুঝতে পেরে চিৎকার দেন দুই বোন। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে প্রথমে শিবানী দাসকে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে সেখান থেকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন সোমবার (০৬ আগস্ট) সকাল ৮টার দিকে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সরেজমিনে মঙ্গলবার (০৭ আগস্ট) ওই বাড়িতে গেলে দেখা যায়, মৃত শিবানীকে সুস্থ করার আশ্বাসে সোফায় বসিয়ে তন্ত্র-মন্ত্র পড়ছেন ওঝা। আর দুর-দুরান্ত থেকে এ দৃশ্য দেখার জন্য গাড়ি করে লোকজন আসছেন শিবনীদের বাড়িতে। লোকজনের ভীড় সামাল দিতে সেখানে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কমর উদ্দিন ও ইউপি সদস্য এবং গ্রাম পুলিশ নিয়ে লোকজনকে নিয়ন্ত্রণ করছেন। কিন্তু কোনভাবেই লোকজনের ভীড় নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

নিহত শিবানীর দাদা প্রনথ চন্দ্র দাস বলেন, ‘ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেছে। কিন্তু স্বজনদের মন। ঝাড়ফুঁকেও যদি মেয়েটা আবার দেহে প্রাণ ফিরে পায়। লোকজন বলতেছে ওঝা ঝাড়ফুঁক দিলে নাকি সুস্থ্য হতে পারে। বালাগঞ্জ ও বিশ্বম্ভবরপুর থেকে ওঝারা এসেছেন। তাই চেষ্টা করা হচ্ছে।’

স্থানীয় দাসেরবাজার ইউপি চেয়ারম্যান কমর উদ্দিন মঙ্গলবার (০৭ আগস্ট) বিকেলে বলেন, ‘সোমবার রাতেই খবর পেয়ে ওই বাড়িতে যাই। হাজার হাজার লোকজন আসতেছে। আমি রাতে পুলিশকে জানাই। পুলিশও আসে। আমি মঙ্গলবার (০৭ আগস্ট) নিজে গ্রাম পুলিশ নিয়ে ওই বাড়িতে আছি। যাতে লোকজনের ভীড়ে কোন ঝামেলা না ঘটে।’

TG Facebook Comments

1 thought on “বড়লেখায় সাপের কামড়ে কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু, সুস্থ করার নামে চলছে ওঝাদের ঝাড়ফুঁক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *