- Rape

১৬ বছর বয়সে ধর্ষিত হয়েছিলেন পদ্মলক্ষ্মী

ডেস্ক নিউজ :: বোমা ফাটালেন আমেরিকান মডেল ও লেখিকা পদ্মলক্ষ্মী। তিনি বলেছেন, মাত্র ১৬ বছর বয়সের সময় তাকে ধর্ষণ করা হয়েছিল। ঘটনাটি ঘটেছিল এখন থেকে প্রায় ৩২ বছর আগে। এতদিন তা গোপন রাখার পর এখন তিনি তা প্রকাশ্যে নিয়ে এসেছেন। ওই ঘটনা নিয়ে নিজেই লিখেছেন নিউ ইয়র্ক টাইমসে। পদ্মলক্ষ্মী বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে টিভি উপস্থাপিকা।

তিনি বিতর্কিত বই ‘স্যাটানিক ভার্সেস’-এর লেখক সালমান রুশদির সাবেক স্ত্রী। ভারতীয় বংশোদ্ভূত পদ্মলক্ষ্মী লিখেছেন, ঘটনাটি ঘটেছিল যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের একটি মহল্লায়।
তখন তিনি ২৩ বছর বয়সী দৃষ্টি আকর্ষণ করে এবং হ্যান্ডসাম এমন একজন যুবকের সঙ্গে চুটিয়ে প্রেম করা শুরু করেন। এভাবে চলতে থাকে। প্রেমের দু’চার মাসের মধ্যেই তার ওই প্রেমিক তাকে ধর্ষণ করে। আর তা ঘটে নতুন বর্ষবরণের এক সময়ে।

কি কারণে পদ্মলক্ষ্মী এতদিন পরে এসব ঘটনা সামনে আনলেন! এ বিষয়টিও জানা গেছে। তা হলো যুক্তরাষ্ট্র সুপ্রিম কোর্টের নমিনি ব্রেট কাভানার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চারদিক যখন সরগরম ঠিক তখনই পদ্মলক্ষ্মী ওই বোমা ফাটালেন। তিনি নিউ ইয়র্ক টাইমসে লিখেছেন, তিনি বুঝতে পারছেন কেন নারীরা বিশেষত ক্রিস্টিন ব্লাসে ফোর্ড এবং ডেবোরা রমিরেজরা তাদের যৌন হয়রানির বিষয় নিয়ে কেন এত দেরিতে কথা বললেন।

একই রকম ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সাম্প্রতিক একটি টুইট উদ্ধৃত করেন। ওই টুইটে ট্রাম্প জানতে চেয়েছেন কেন এত বছর ডা. ব্লাসে ফোর্ড মুখ বন্ধ করে ছিলেন। কেন তিনি তার অভিযোগ নিয়ে এতদিন কথা বলেননি।

ট্রাম্প তার টুইটে লিখেছেন ‘আমার কোনোই সন্দেহ নেই যে, যেমনটি ড. ফোর্ড বলছেন যদি ঘটনা ততটাই খারাপ হতো তাহলে তিনি বা তার প্রিয় পিতামাতা অবিলম্বে স্থানীয় আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দিতে পারতেন। আমার মনে হয় তিনি ওইসব বিষয় এখন সামনে নিয়ে এসেছেন এ জন্য, যাতে আমরা তারিখ, সময় ও স্থান সম্পর্কে জানতে পারি’।

কেন এতদিন নীরব ছিলেন পদ্মলক্ষ্মী! হ্যাঁ, তিনি বলেছেন, একটি কারণে তিনি এতদিন নীরব ছিলেন। এমন কি ওই ঘটনা সম্পর্কে তিনি তার মায়ের সঙ্গেও শেয়ার করেননি। একই ঘটনা তার বয়স যখন ৭ বছর ছল। তার সৎপিতার দিককার এক নিকট আত্মীয় ওই বয়সে তাকে আপত্তিকরভাবে স্পর্শ করেছেন। এ বিষয়ে পদ্মলক্ষ্মী যখন তার মাকে জানালেন তখন তিনি সঙ্গে সঙ্গে পদ্মলক্ষ্মীকে পাঠিয়ে দিলেন ভারতে, যাতে তিনি সেখানে তার নানা নানির সঙ্গে বসবাস করতে পারেন। এ থেকে পদ্মলক্ষ্মী একটি শিক্ষা পেয়েছিলেন। তা হলো, যদি তুমি এ বিষয়ে মুখ খোলা তাহলে তোমাকে শাস্তি পেতে হবে। এতে তারই ক্ষতি হবে। পদ্মলক্ষ্মী লিখেছেন, তার প্রেমিক তাকে ধর্ষণ করার আগে পর্যন্ত তিনি ছিলেন কুমারী।

TG Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *