কিশোরীকাল

- কিশোরীকাল, সচেতনতা

আর নীরবতা নয়

কিরণ কুহেলী শিখা চুপ করে থাকিসনে বোন, বন্ধু আমি তোর, একটু মুখ খোল। বাবা মায়ের আদরের মেয়ে, থাকিস বোকার মত চেয়ে ; ঘর আলো করা সুন্দরী তুই; অনেকেই যে চায় একটু ছুঁই। এখানেই যে বিপদ শিখা কতদিন সামলাবি একা। আমি পড়েছি চোখের ভাষা বুঝেছি তোর সব হতাশা। চেনাজানা কিছু কাছের মানুষ দেখেছিস কেমন নোংরা ফানুস। আর চুপ নয় নীল বেদনায়, সচেতন হও স্বপ্নের ডানায়। নীরবতা ভেঙে দস্যি হো একবার, সাবধানে চল-লক্ষ্মী বোন আমার।

- কিশোরীকাল, সচেতনতা

স্কুল হোক নিরাপদ

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হল মুক্তবুদ্ধির চর্চা কিংবা অন্যান্য সৃজনশীল দিকগুলো বিকাশের অন্যতম মাধ্যম। পরিবারের বাইরে আদর্শ চর্চার সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান হল স্কুল। যে কোন স্কুলের মনোরম পরিবেশ ও ইতিবাচক আবহ ছাত্র-ছাত্রীদের মানসিক বিকাশকে সহায়তা করে। পাশাপাশি, স্কুলের ইতিবাচক পরিবেশ ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক এমনকি স্কুল কমিটির সদস্যরাও নিজেদেরকে স্কুলের সাথে আরও বেশি সম্পৃক্ত মনে করেন, যা পরবর্তীতে উন্নত শিক্ষার প্রসার ঘটায়। এক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বাস্থ্যকর পরিবেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সে বিবেচনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বাস্থ্যকর টয়লেট ব্যবস্থা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন। ২০১৪ সালের জাতীয় স্বাস্থ্যবিধির…

Read More

- কিশোরীকাল, নারীর অর্জন

ডলির জয়ে উচ্ছ্বসিত মৌলভীবাজার

ডলির বিজয়ে আনন্দিত সবাই। তার পরিবার ও স্বজনদের সঙ্গে আনন্দে উচ্ছ্বসিত এ মৌলভীবাজার জেলাবাসীসহ পুরো দেশ। কারণ, তিনিই প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত যিনি কানাডার জনগণের বিপুল ভোটে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন। কানাডার প্রাদেশিক নির্বাচনে এমপিপি (মেম্বার অব প্রভিন্সিয়াল পার্লামেন্ট) নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস গড়েছেন। ৭ই জুন নির্বাচন হলেও ফলাফল ও তার বিজয়ের খবর শুক্রবার দুপুর থেকে লোক মুখে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ায়। দেশ ও প্রবাসে থাকা মৌলভীবাজারের বাসিন্দারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে উষ্ণ অভিনন্দন জানান। ফেসবুকে অনেকেই ডলি দেশের গর্ব, আমাদের অহংকার…

Read More

- কিশোরীকাল, নারীর অর্জন

কানাডার প্রাদেশিক নির্বাচনে মৌলভীবাজারের ডলির বিজয়

ইমাম উদ্দিন (কানাডা থেকে): বাংলাদেশী মেয়ে ডলি বেগম ওন্টারিও প্রদেশের টরন্টো এলাকার একটি আসন থেকে এমপিপি (মেম্বর অব প্রভিন্সিয়াল পার্লামেন্ট) নির্বাচিত হয়েছেন। ৭ জুন এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ডলি প্রগ্রেসিভ কনসারভেটিভ পার্টির গ্রে এলিয়েসকে প্রায় ৬ হাজার ভোটের ব্যবধানে হারান। ডলির প্রাপ্ত ভোট ১৯৭৫১। নির্বাচনে তার এই জয়কে স্থানীয় অনেকে বাংলাদেশী মেয়ের টরন্টো বিজয় হিসেবে দেখছেন। এরআগে কোনো বাঙালী টরন্টো, এমনকি কানাডার কোনো নির্বাচনে জিততে পারেননি। ডলি বেগম প্রথমবারের মতো প্রভিন্সিয়াল পার্লামেন্ট নির্বাচনে জিতে শুধু কানাডায় নয় সারা বিশ্বের বাঙালীদেরদের…

Read More